বৃহস্পতিবার, ৩০শে নভেম্বর, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ, ১৫ই অগ্রহায়ণ, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
বৃহস্পতিবার, ৩০শে নভেম্বর, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ

প্রস্তুতি আল্লাহর ওপর ছেড়ে দিলাম: মোস্তাফিজ

প্রস্তুতি আল্লাহর ওপর ছেড়ে দিলাম: মোস্তাফিজ
প্রস্তুতি আল্লাহর ওপর ছেড়ে দিলাম: মোস্তাফিজ

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজকে সামনে রেখে সতীর্থরা যখন মিরপুরের সবুজ গালিচায় ঘাম ঝরিয়েছেন মোস্তাফিজুর রহমান তখন কোয়ারেন্টাইনে। চার দেয়ালে বন্দি থেকে গুণছিলেন অপেক্ষার প্রহর।

১২ দিনের কোয়ারেন্টাইন শেষে অবশেষে মুক্তি পেয়েছেন গতকাল মঙ্গলবার (১৮ মে) । এর আগে ভারতে ৫ দিন ছিলেন হোটলবন্দি। সব মিলিয়ে ১৭ দিনে শুয়ে বসে থেকে শরীরে ‘জং ধরাটাই’ স্বাভাবিক। সিংহের দলকে আতিথেয়তা দিতে প্রস্তুতিতে খুব বেশি সময় পাচ্ছেন না তিনি। ২৩ মে দুই দলের প্রথম ওয়ানডে মিরপুরে।

সেজন্য হোম সিরিজের প্রস্তুতি সৃষ্টিকর্তার উপর ছেড়ে দিলেন বাঁহাতি পেসার। বুধবার মিরপুরে অনুশীলন শেষে মোস্তাফিজ গণমাধ্যমে মুখোমুখি হয়ে বলেন,‘আইপিএল ও আমাদের দেশের রুম কোয়ারেন্টাইন মিলে আমি শেষ ১৯ দিনে একদিন অনুশীলন ও একটা ম্যাচ খেলেছি। এখন জানিনা…আমি আর সাকিব ভাই দুজনেই প্রায় একই রকম ছিলাম। কালকে তো আমরা অনুশীলন করতে পারিনি, আরও দুইদিন পাবো। প্রস্তুতি আল্লাহর উপর ছেড়ে দিলাম।’

কোয়ারেন্টাইন শেষে মঙ্গলবার মাঠে ফিরলেও সাকিব ও মোস্তাফিজ অনুশীলন করতে পারেননি। বৃষ্টির বাধায় পণ্ড হয় ঈদের পর প্রথম অনুশীলন। বুধবার অনুশীলনের সুযোগ পেয়ে বল হাতে নেমে পড়েন মোস্তাফিজ। কিছুক্ষণ ইনডোরে বোলিং করেছেন সাকিব আল হাসানকে। এরপর সেন্টার উইকেটে শুধু রানআপ করে গেছেন।

 

দীর্ঘদিন পর বোলিং করে ছন্দ পেয়েছেন কি না এমন প্রশ্নের উত্তরে মোস্তাফিজ বলেন,‘একটানা ১৯ দিন যদি কিছু না করি, রুমের ভেতর টুকটাক যা করা যায় সেগুলো ছাড়া…এরপর এসে প্রথম দিনই যদি অনেক কিছু ভাবি তাহলে তো হওয়ার কথা না। আমি চেষ্টা করছি আস্ত আস্তে যেন ছন্দে ফিরতে পারি।’

এবারের আইপিএলে মোস্তাফিজ খেলেছেন রাজস্থান রয়্যালসের হয়ে। শুরু থেকেই টানা ম্যাচ খেলে নিয়েছেন ৮ উইকেট। করোনা ভাইরাসের কারণে ৫ মে স্থগিত হয় আইপিএল। ৬ মে সাকিবসহ বিশেষ বিমানে দেশে ফেরেন। এরপর গতকাল অনুশীলনের আগ পর্যন্ত ছিলেন কোয়ারেন্টাইনে। সিরিজের জন্য আবার ঢুকে যাবেন জৈব সুরক্ষা বলয়ে।

জৈব সুরক্ষা বলয় ও কোয়ারেন্টাইন নিয়ে তিক্ত অভিজ্ঞতার কথা এক বাক্যে সেরেছেন মোস্তাফিজ, ‘শেষ দুই বছর শুধু আমার না, সব খেলোয়াড়ের জন্য জৈব সুরক্ষা বলয় কষ্টকর।’


error: নিউজ কপি করা নিষেধ !!